1. admin@kholanewsbd24.com : admin :
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:২৫ অপরাহ্ন
সোমবার, ০৫ ডিসেম্বর ২০২২, ০৮:২৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
১০ই ডিসেম্বর আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীরা পাহারায় থাকবে -ওবায়দুল কাদের সন্তানকে সুশিক্ষায় শিক্ষিত করে গড়ে তুলতে মায়ের ভূমিকা অপরিসীম ,বক্তব্যে বললেন- সদর উপজেলা চেয়ারম্যান– টিটো ঠাকুরগাঁওয়ে ২শত কেজি পলিথিন জব্দ, ৫০ হাজার টাকা জরিমানা আশুলিয়ায় ৩ কেজি গাঁজাসহ আটক ২ ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গীতে ৪৪তম বিজ্ঞান প্রযুক্তি সপ্তাহে বিজ্ঞান মেলা টঙ্গীতে ন্যায় বিচার চেয়ে সংবাদ সম্মেলন কোভিড ১৯ ১ম, ২য় ও বুস্টার ডোজ টিকা প্রদানে মসিকের বিশেষ ক্যাম্পেইন ইয়ারপুর ইউপি উপ-নির্বাচনে নৌকার মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত বিরামপুরে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে প্রস্তুতিমূলক সভা অনুষ্ঠিত সিলেট রিপোর্টার্স ক্লাব নেতৃবৃন্দের সাথে বিএমএসএস চেয়ারম্যানের সৌজন্য সাক্ষাৎ

লামা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন যুবলীগের যোগ্য প্রার্থী মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু

প্রশাসন
  • সময় : বৃহস্পতিবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২২
  • ২৮ বার পঠিত

মোঃ এমরান
বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি

আসন্ন লামা উপজেলা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির সভাপতি পদে দলীয় নেতাকর্মীদের পছন্দের তালিকায় ও জনমতে এগিয়ে আছেন ফাঁসিয়াখালীর কৃতিসন্তান কর্মীবান্ধব বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক,পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বাবু বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি মহোদয় এর একনিষ্ঠ কর্মী, রাজপথের লড়াকু সাহসী যোদ্ধা ও চৌকস ত্যাগী নেতা মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু( এল.এল.বি.অনার্স, এল এল.এম)
তিনি ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মহান জাতীয় সংসদ নির্বাচন, উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচন এবং সর্বশেষ অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় নৌকার প্রার্থীকে জয় করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তাছাড়া তিনি দলীয় ও জাতীয় দিবসগুলো এবং বিভিন্ন কর্মসূচি সঠিকভাবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনসহ সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডগুলো লেখার মাধ্যমে তুলে ধরেন।

দলীয়সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ এর ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি নির্বাচিত হয় জনাব এরশাদুল রহমান, আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয় ওমর ফারুক। কিন্তু ২০১৮ সালে বৃহতম ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন কে সাংগঠনিক দুইটি শাখায় বিভক্ত করা হয়।
ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন শাখায় জনাব এরশাদুল রহমান কে সভাপতি ও ইয়াংছা -কুমারী কে ইয়াংছা ইউনিটে ওমর ফারুক কে আহবায়কের দায়িত্ব দেওয়া হয়।
২০১৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীকে বিজয় করতে যুবলীগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তাদের মধ্যে মো: ফরিদুল আলম বাবলুর অবদান অনস্বীকার্য।

২০১৯ সালে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন শাখায়
তিন মাসের জন্য আহবায়ক কমিটি দিয়ে প্রায় ৪ বছর পার হয়ে গেলেও ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন শাখার যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় হতাশার মধ্যে ছিলেন যুবলীগের নেতাকর্মীরা। ৯০দিনের আহবায়ক কমিটি দেওয়া হয়, কিন্তু চার বছরেও তা পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রূপ নেয়নি বলে নেতাকর্মীসহ ফাঁসিয়াখালীবাসী অনেকেই অভিমত প্রকাশ করেছেন। এতদিন পূর্ণাঙ্গ কমিটি না করায় যুবলীগের প্রকৃত নেতাকর্মীরা এতোদিন ছিলেন দ্বিধদ্বন্দ্বের মধ্যে।
আগামী ২৫ নভেম্বর ত্রিবার্ষিক সম্মেলন এর তারিখ ঘোষণা করায় নেতাকর্মীর মাঝে চলছে আলোচনা ও সমালোচনা।
নতুন কমিটিতে কারা পদপ্রার্থী আর কারা সম্মানজনক স্থান পাবেন এনিয়ে চলছে নানারকম জল্পনা-কল্পনা ও অভিমত। সূত্র জানায়, নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে স্থান পেতে বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে পদপ্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ, শীর্ষ নেতাদের দাবি- যোগ্য প্রার্থীদের পদ দেওয়া হবে। যার মধ্যে রয়েছেন। যুবলীগের ঐক্যবদ্ধ কর্মীবান্ধব গতিশীল ত্যাগী নেতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ফাঁসিয়াখালীবাসীর অহংকার ও জনপ্রিতায় এগিয়ে আছেন এমনই একজন নেতা তিনি হলেন মোঃ ফরিদুল আলম বাবলুু।
ফাঁসিয়াখালী আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও, কৃষকলীগ, জাতীয় শ্রমিকলীগ, মহিলা আওয়ামিলীগ ও মহিলা যুবলীগ সহ এর অঙ্গ সংগঠন নেতাকর্মীসহ অনেকেইে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর
রহমানের আদর্শে অনুপ্রানিত, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বাবু বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি মহোদয় এর একনিষ্ঠকর্মী ফাঁসিয়াখালীর মধ্যম হায়দারনাশী গ্রামের কৃর্তিসন্তান আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান মো: ফরিদুল আলম বাবলু।
তিনি ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামিলীগ এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাবেক ৬নং ওয়ার্ড এবং বর্তমান সাংগঠনিক ৮নং ওয়ার্ডের আওয়ামিলীগ সিনিয়র সদস্য শামসুল আলম এর তৃতীয় সন্তান।
তার বড় ভাই আবুল কালাম আজাদ ৫নং ওয়ার্ডের যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক, সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তার বড় ভাই আবুল কালাম আজাদ বর্তমানে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক (সাংগঠনিক সম্পাদক)।

তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত, শিক্ষাজীবন থেকে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন আর রাজনৈতিক জীবনে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত গাছবাড়িয়া সরকারি কলেজের ছাত্রলীগের দায়িত্ব পালন করেন। এরপরে ২০১৪ সাল থেকে ২০২২সাল পর্যন্ত লামা উপজেলা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ এর দায়িত্ব পালন করেন।
লামা উপজেলা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে হায়দারনাশীর কৃতিসন্তান মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু ছাত্রজীবন থেকেই ছিলেন অতি সাহসী ও চৌকস এবং বিপ্লবী নেতা। তিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর। বিএনপি’র জোট সরকারের সময় তিনিই ছিলেন রাজপথের লড়াকু সৈনিক, তখন আর কোনো নেতার এমন ভুমিকা চোখে পড়েনি। বর্তমানেও মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু’র ডাকে যেকোনো সময় শতশত শ্রমিক ও নেতা কর্মীগণ রাজপথে মিছিলে আসেন। এছাড়াও দলীয় যেকোনো কর্মসূচিতে সবচেয়ে বেশি নেতাকর্মী নিয়ে হাজির হওয়ার নজির রয়েছে মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু’র রাজনীতি জীবনে।

মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু বলেন, এই বাংলার আকাশ বাতাস সাগর, গিরি ও নদী ডাকিয়েছে তোমায় বঙ্গবন্ধু আবার আসিতে
যদি…“যতকাল রবে পদ্মা, মেঘনা, গৌরী, যমুনা বহমান-ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান” তিনি আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, জাতীয় শ্রমিকলীগ ও আওয়ামী সহযোগী সংগঠনের বান্দরবান জেলাধীন সকল নেতা কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার পক্ষে আছেন, থাকবেন। মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু নিজেকে সৎ ও যোগ্য দাবি করে বলেন, জনগণের স্বার্থে আমি রাজনীতি করি, আমার এলাকায় চাঁদাবাজি নেই, ব্যবসায়ীরা শান্তিতে ব্যবসা বাণিজ্য করছেন। তিনি বলেন, আমি দলে অনুপ্রবেশকারী নয়,বা কারো বাহক হয়ে আসি নাই, ছাত্রজীবন থেকে সততার সঙ্গে
রাজনীতি করে আমার যোগ্যতার পরিচয় দিয়ে আসছি। তিনি আরও বলেন, টেন্ডারবাজি চাঁদাবাজির সঙ্গে কখনো জড়াইনি, ছাত্রলীগ থেকে রাজনীতির হাতেখড়ি, ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছি। কর্মীদের মূল্যায়ন ও দলের ভাবমূর্তি বৃদ্ধির জন্য কাজ করি আমি, তাই আমার অধিকার আছে বলেই আমি ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন যুবলীগের যোগ্য পদের প্রত্যাশী।লামা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন যুবলীগের যোগ্য প্রার্থী মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু

মোঃ এমরান
বান্দরবান জেলা প্রতিনিধি

আসন্ন লামা উপজেলা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটির সভাপতি পদে দলীয় নেতাকর্মীদের পছন্দের তালিকায় ও জনমতে এগিয়ে আছেন ফাঁসিয়াখালীর কৃতিসন্তান কর্মীবান্ধব বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক,পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বাবু বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি মহোদয় এর একনিষ্ঠ কর্মী, রাজপথের লড়াকু সাহসী যোদ্ধা ও চৌকস ত্যাগী নেতা মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু( এল.এল.বি.অনার্স, এল এল.এম)
তিনি ২০১৪ ও ২০১৮ সালের মহান জাতীয় সংসদ নির্বাচন, উপজেলা ও পৌরসভা নির্বাচন এবং সর্বশেষ অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে দলীয় নৌকার প্রার্থীকে জয় করতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তাছাড়া তিনি দলীয় ও জাতীয় দিবসগুলো এবং বিভিন্ন কর্মসূচি সঠিকভাবে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালনসহ সরকারের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডগুলো লেখার মাধ্যমে তুলে ধরেন।

দলীয়সূত্রে জানা যায়, ২০১৪ সালে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ এর ত্রিবার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতি নির্বাচিত হয় জনাব এরশাদুল রহমান, আর সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হয় ওমর ফারুক। কিন্তু ২০১৮ সালে বৃহতম ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন কে সাংগঠনিক দুইটি শাখায় বিভক্ত করা হয়।
ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন শাখায় জনাব এরশাদুল রহমান কে সভাপতি ও ইয়াংছা -কুমারী কে ইয়াংছা ইউনিটে ওমর ফারুক কে আহবায়কের দায়িত্ব দেওয়া হয়।
২০১৮ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থীকে বিজয় করতে যুবলীগ গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেন। তাদের মধ্যে মো: ফরিদুল আলম বাবলুর অবদান অনস্বীকার্য।

২০১৯ সালে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন শাখায়
তিন মাসের জন্য আহবায়ক কমিটি দিয়ে প্রায় ৪ বছর পার হয়ে গেলেও ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন শাখার যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় হতাশার মধ্যে ছিলেন যুবলীগের নেতাকর্মীরা। ৯০দিনের আহবায়ক কমিটি দেওয়া হয়, কিন্তু চার বছরেও তা পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রূপ নেয়নি বলে নেতাকর্মীসহ ফাঁসিয়াখালীবাসী অনেকেই অভিমত প্রকাশ করেছেন। এতদিন পূর্ণাঙ্গ কমিটি না করায় যুবলীগের প্রকৃত নেতাকর্মীরা এতোদিন ছিলেন দ্বিধদ্বন্দ্বের মধ্যে।
আগামী ২৫ নভেম্বর ত্রিবার্ষিক সম্মেলন এর তারিখ ঘোষণা করায় নেতাকর্মীর মাঝে চলছে আলোচনা ও সমালোচনা।
নতুন কমিটিতে কারা পদপ্রার্থী আর কারা সম্মানজনক স্থান পাবেন এনিয়ে চলছে নানারকম জল্পনা-কল্পনা ও অভিমত। সূত্র জানায়, নতুন পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে স্থান পেতে বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে পদপ্রার্থীদের দৌড়ঝাঁপ, শীর্ষ নেতাদের দাবি- যোগ্য প্রার্থীদের পদ দেওয়া হবে। যার মধ্যে রয়েছেন। যুবলীগের ঐক্যবদ্ধ কর্মীবান্ধব গতিশীল ত্যাগী নেতা বঙ্গবন্ধুর আদর্শের সৈনিক ফাঁসিয়াখালীবাসীর অহংকার ও জনপ্রিতায় এগিয়ে আছেন এমনই একজন নেতা তিনি হলেন মোঃ ফরিদুল আলম বাবলুু।
ফাঁসিয়াখালী আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও, কৃষকলীগ, জাতীয় শ্রমিকলীগ, মহিলা আওয়ামিলীগ ও মহিলা যুবলীগ সহ এর অঙ্গ সংগঠন নেতাকর্মীসহ অনেকেইে বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর
রহমানের আদর্শে অনুপ্রানিত, পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী বাবু বীর বাহাদুর উশৈসিং এমপি মহোদয় এর একনিষ্ঠকর্মী ফাঁসিয়াখালীর মধ্যম হায়দারনাশী গ্রামের কৃর্তিসন্তান আওয়ামীলীগ পরিবারের সন্তান মো: ফরিদুল আলম বাবলু।
তিনি ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামিলীগ এর প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও সাবেক ৬নং ওয়ার্ড এবং বর্তমান সাংগঠনিক ৮নং ওয়ার্ডের আওয়ামিলীগ সিনিয়র সদস্য শামসুল আলম এর তৃতীয় সন্তান।
তার বড় ভাই আবুল কালাম আজাদ ৫নং ওয়ার্ডের যুবলীগের সাবেক সাংগঠনিক, সাধারণ সম্পাদক ও সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। এছাড়া তার বড় ভাই আবুল কালাম আজাদ বর্তমানে ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ আহবায়ক কমিটির যুগ্ম আহবায়ক (সাংগঠনিক সম্পাদক)।

তিনি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত, শিক্ষাজীবন থেকে রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন আর রাজনৈতিক জীবনে ২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত গাছবাড়িয়া সরকারি কলেজের ছাত্রলীগের দায়িত্ব পালন করেন। এরপরে ২০১৪ সাল থেকে ২০২২সাল পর্যন্ত লামা উপজেলা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগ এর দায়িত্ব পালন করেন।
লামা উপজেলা ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়নে হায়দারনাশীর কৃতিসন্তান মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু ছাত্রজীবন থেকেই ছিলেন অতি সাহসী ও চৌকস এবং বিপ্লবী নেতা। তিনি অন্যায়ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদী কণ্ঠস্বর। বিএনপি’র জোট সরকারের সময় তিনিই ছিলেন রাজপথের লড়াকু সৈনিক, তখন আর কোনো নেতার এমন ভুমিকা চোখে পড়েনি। বর্তমানেও মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু’র ডাকে যেকোনো সময় শতশত শ্রমিক ও নেতা কর্মীগণ রাজপথে মিছিলে আসেন। এছাড়াও দলীয় যেকোনো কর্মসূচিতে সবচেয়ে বেশি নেতাকর্মী নিয়ে হাজির হওয়ার নজির রয়েছে মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু’র রাজনীতি জীবনে।

মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু বলেন, এই বাংলার আকাশ বাতাস সাগর, গিরি ও নদী ডাকিয়েছে তোমায় বঙ্গবন্ধু আবার আসিতে
যদি…“যতকাল রবে পদ্মা, মেঘনা, গৌরী, যমুনা বহমান-ততকাল রবে কীর্তি তোমার শেখ মুজিবুর রহমান” তিনি আওয়ামীলীগ, যুবলীগ, ছাত্রলীগ, জাতীয় শ্রমিকলীগ ও আওয়ামী সহযোগী সংগঠনের বান্দরবান জেলাধীন সকল নেতা কর্মীদের ঐক্যবদ্ধভাবে কাজ করার পক্ষে আছেন, থাকবেন। মোঃ ফরিদুল আলম বাবলু নিজেকে সৎ ও যোগ্য দাবি করে বলেন, জনগণের স্বার্থে আমি রাজনীতি করি, আমার এলাকায় চাঁদাবাজি নেই, ব্যবসায়ীরা শান্তিতে ব্যবসা বাণিজ্য করছেন। তিনি বলেন, আমি দলে অনুপ্রবেশকারী নয়,বা কারো বাহক হয়ে আসি নাই, ছাত্রজীবন থেকে সততার সঙ্গে
রাজনীতি করে আমার যোগ্যতার পরিচয় দিয়ে আসছি। তিনি আরও বলেন, টেন্ডারবাজি চাঁদাবাজির সঙ্গে কখনো জড়াইনি, ছাত্রলীগ থেকে রাজনীতির হাতেখড়ি, ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন আওয়ামী যুবলীগের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে থেকে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছি। কর্মীদের মূল্যায়ন ও দলের ভাবমূর্তি বৃদ্ধির জন্য কাজ করি আমি, তাই আমার অধিকার আছে বলেই আমি ফাঁসিয়াখালী ইউনিয়ন যুবলীগের যোগ্য পদের প্রত্যাশী।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ খোলা নিউজ বিডি ২৪
Themes Customize By Shakil IT Park