1. admin@kholanewsbd24.com : admin :
রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০১:৫১ অপরাহ্ন
রবিবার, ২২ মে ২০২২, ০১:৫১ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
টেকনাফের নয়াপাড়া সদর ২,০০০ পিস ইয়াবাসহ তিনজন গ্রেফতার রাজশাহীতে ভূমি সেবা সপ্তাহের উদ্বোধন রাজশাহীর মোহনপুরে মারপিট ও ছিনতাই মামলার আসামি গ্রেপ্তার কবির হাটে সম্পতি বিরোধের জের ছোট ভাইয়ের হাতে বড় ভাই খুন নোয়াখালীর চৌমুহানীতে ব্যবসায়ীকে ছুরিকাঘাতে হত্যা আটক-৩ “ধ্রুবতারা ইয়ূথ ডেভেলপমেন্ট ফাউন্ডেশন” দিনাজপুর জেলা শাখার পরিচিতি ও আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত হাতীবান্ধায় বঙ্গবন্ধু গোল্ডকাপ ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল অনুষ্ঠিত হয়েছে রায়গঞ্জের ভূঁইয়াগাতীতে এক মণ ধানে এক জনের মজুরী চলতি কৃষকের বেহাল অবস্থা ঠাকুরগাঁওয়ে বালিয়াডাঙ্গী স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এর ২য় তলা থেকে রোগীকে ফেলে দেওয়ার অভিযোগ রাজশাহী মহানগরীর চলমান উন্নয়ন নিয়ে প্রকৌশলীদের সাথে মতবিনিময়

রাজশাহীতে বাজার থেকে বোতলজাত সয়াবিন তেল উধাও

প্রশাসন
  • সময় : শনিবার, ৩০ এপ্রিল, ২০২২
  • ২৫ বার পঠিত

এম এম মামুন, রাজশাহী ব্যুরো : রাজশাহীতে ঈদের আগে বোতলজাত সয়াবিন তেল পাওয়া যাচ্ছে না। খোলা তেল পাওয়া গেলেও তা বিক্রি হচ্ছে বোতলজাত সয়াবিনের চেয়ে বেশি দামে। বেশির ভাগ দোকানি বলছেন, পাইকারি বাজারে বোতলজাত তেল পাওয়া যাচ্ছে না। মাসখানেক ধরেই এ অবস্থা চলছে। বিষয়টি নিয়ে প্রশাসনের কোনো তৎপরতাও দেখা যায়নি।
গতকাল শুক্রবার সকালে নগরীর সাহেববাজার, লক্ষ্মীপুর মোড়, বেলদারপাড়া মোড় ও শিরোইল এলাকার মুদি দোকানগুলোতে ঘুরে কোথাও বোতলজাত সয়াবিন তেল পাওয়া যায়নি। সাহেববাজার এলাকায় সব মিলিয়ে প্রায় ৫০টি মুদি দোকানের কোনটিতেই বোতলজাত সয়াবিন তেল সাজানো দেখা যায়নি। তবে খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি করতে দেখা গেছে।
সাহেববাজারের হাবিব স্টোরের বিক্রয়কর্মী সারোয়ার আলী জানান, এক মাস ধরে পরিবেশক বোতলজাত সয়াবিন তেল দিতে পারছেন না। কোনো কোম্পানিরই তেল মিলছে না। তিনি নিজের বাড়ির জন্য দোকানে দোকানে ঘুরেও বোতলজাত তেল পাননি। এখন ১৮৫ টাকা লিটারে সয়াবিন ও ১৭৫ টাকা দরে পাম ওয়েল কিনে বিক্রি করছেন।
দারুল হাবিব নামের একটি দোকানের মালিক শাহাদাত হোসেন জানালেন, এক মাস আগে শেষবার বোতলজাত সয়াবিন তেল পেয়েছিলেন। লিটারে এই তেলের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ছিল ১৬০ টাকা। বাজারে এখন খোলা তেলই বিক্রি হচ্ছে ১৯০ থেকে ১৯৫ টাকা লিটারে। শাহাদাত বলেন, কারও কাছে যদি এখন বোতলজাত তেল থেকেও থাকে তাহলে সেটা বের করে খোলা হিসেবেই বিক্রি করা হচ্ছে। এতে লাভ বেশি। বোতলজাত তেলের সর্বোচ্চ খুচরা মূল্য ধরে বিক্রি করলে লাভ কম।
সাহেববাজারের পাইকারি তেল বিক্রেতা মেসার্স সাব্বির স্টোরের মালিক সাব্বির হোসেন বলেন, প্রায় সব কোম্পানিই এখন তেল দেওয়ার ক্ষেত্রে শর্ত দিচ্ছে। বলছে, তেলের সঙ্গে ময়দা বা চিনিও নিতে হবে। এভাবে তো বিক্রি করা যায় না। সে জন্য তেলই নিচ্ছি না। কোম্পানিও শুধু তেল দিচ্ছে না। তাই সংকট। তবে এখনো কোথাও কোথাও বোতলজাত তেল পাওয়া যাচ্ছে বলে জানালেন জলিল অ্যান্ড সন্স নামের এক দোকানের মালিক আবদুল জাব্বার রানা। তিনি বলেন, এক মাস ধরেই আমরা কিনতে গেলে বোতলের তেল পাচ্ছি না। অথচ দু’একজন ক্রেতাকে বোতল হাতে নিয়ে যেতে দেখছি। বেশি দাম দিলে বোতলজাত তেলও পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু কোনো দোকানে তেলের বোতল সাজানো নেই। আমরা খোলা তেল এনে বিক্রি করছি।
বোতলজাত তেলের জন্য পর পর আট থেকে দশটি দোকান ঘুরেও বোতলজাত তেল পাননি আবদুর রহমান। শেষে ১০ টাকায় দুই লিটারের একটা বোতল কিনে তাতে খোলা তেলই ভরে নিচ্ছিলেন সাহেববাজারের এক দোকানে। আবদুর রহমান বলেন, ‘আজব এক ব্যাপার! সামনে ঈদ বলে বোতলের তেল উধাও। বোতলের তেলে মূল্য লেখা থাকে। বেশি দামে বিক্রি করতে গেলে ভ্রাম্যমাণ আদালতে ধরা পড়ার ভয় আছে। সে জন্য এখন বোতল থেকে তেল বের করে বেশি দামে বিক্রি করা হচ্ছে।’
জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের রাজশাহী বিভাগীয় কার্যালয়ের উপপরিচালক অপূর্ব অধিকারী জানান, বোতলজাত তেলের সংকটের কথা তাঁর জানা নেই। শুক্রবার থেকে লম্বা ছুটিও শুরু হয়েছে। এর মধ্যে তাঁরা একা অভিযানে নামতে চান না। তিনি খোঁজ নিয়ে দেখবেন। তেলের সংকট হলে জেলা প্রশাসনের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ খোলা নিউজ বিডি ২৪
Themes Customize By Theme Park BD