1. admin@kholanewsbd24.com : admin :
শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন
শুক্রবার, ২০ মে ২০২২, ১২:৪৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
পাক্কা ৪০ কেজিতে আমের মণ নির্ধারণ হবে। উচ্চ আদালতে বিচারাধীন স্বত্বেও নিম্ন আদালতের রায়ে ১০টি হিন্দু পরিবার ও ১৮টি মুসলিম পরিবারকে উচ্ছেদ! জবি মার্কেটিং ক্লাবের সভাপতি রায়হান, সম্পাদক সাইদ রামুর চেইন্দা এলাকায় ১৪৭৫ পিস ইয়াবা সহ তিনজনকে গ্রেফতার। টাঙ্গাইলের সখীপুরে প্রতিপক্ষের হামলায় বেরিয়ে গেছে পেটের ভুঁড়ি আবদুল গাফফার চৌধুরীর মৃত্যুতে বিএমএসএস নেতৃবৃন্দের শোক প্রকাশ। পদ্মা সেতু নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর বক্তব্য সরাসরি বেগম জিয়াকে হত্যার হুমকির সামিল– মির্জা ফখরুল ১৯ বছর পর গাজীপুর জেলা আওয়ামী লীগের ত্রি- বার্ষিক সম্মেলন সখীপুরে চেয়ারম্যান প্রার্থী রনি’র নিজ অর্থায়নে রাস্তা সংস্কার আবদুল গাফফার চৌধুরীর মৃত্যুতে হযরত শাহজালাল রহঃ প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের শোক প্রকাশ।

রানা প্লাজা ট্র্যাজেডি: ৯ বছরেও মেলেনি বিচার

প্রশাসন
  • সময় : রবিবার, ২৪ এপ্রিল, ২০২২
  • ১৯ বার পঠিত

খোলা নিউজ বিডি ডেস্ক : বিশ্বকে নাড়া দেওয়া শিল্প দুর্ঘটনা সাভারের রানা প্লাজা ট্র্যাজেডির নয় বছরেও বিচার না পেয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন আহত শ্রমিক ও নিহতদের স্বজনরা। আজ ২৪ এপ্রিল দেশের পোশাকশিল্পের ইতিহাসে এক শোকাবহ দিন।
২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল সকাল ৯টার দিকে ধসে পড়ে সাভারের রানা প্লাজা ভবন। ওই ঘটনায় এক হাজার ১৩৬ জনের মরদেহ উদ্ধার করা হয়। আহত ও পঙ্গু হন প্রায় দুই হাজার শ্রমিক। জীবিত উদ্ধার করা হয় দুই হাজার ৪৩৮ জনকে।
বাংলাদেশ তো বটেই সারা বিশ্বকে নাড়িয়ে দেয় এ শিল্প দুর্ঘটনা। দেশের ইতিহাসে কঠিন এ ট্র্যাজেডির দিনে প্রতিবছরই আহত শ্রমিক ও নিহতদের স্বজনরা বিচারের দাবিতে ভিড় করেন ঘটনাস্থলে। বিলাপ করেন বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে নির্মিত রানা প্লাজার স্মৃতিস্তম্ভের সামনে।
এদিকে রানা প্লাজা ধসের পর নয় বছর পেরিয়ে গেলেও এখনো দায়ীদের বিচারে কোনো অগ্রগতি নেই। এ ঘটনায় হওয়া মূল মামলায় ছয় বছর আগে বিচার শুরু হলেও এখনো কোনো সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি।
রানা প্লাজা ধসের ঘটনায় এ পর্যন্ত ভবনের মালিক রানা, তার পরিবার, সাভার পৌরসভার তৎকালীন মেয়রসহ বিভিন্ন জনের নামে পাঁচটি মামলা হয়।
সাভার মডেল থানার তৎকালীন উপপরিদর্শক (এসআই) ওয়ালী আশরাফ ভবন নির্মাণে ‘অবহেলা ও ত্রুটিজনিত হত্যার’ অভিযোগ এনে মামলা করেন।
২০১৫ সালের ২৬ এপ্রিল সিআইডির সহকারী পুলিশ সুপার বিজয়কৃষ্ণ কর ভবন মালিক সোহেল রানাসহ ৪১ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। অভিযোগপত্রে রানার বিরুদ্ধে ৩০২ ধারায় হত্যাকাণ্ডের অভিযোগ আনা হয়। ২০১৬ সালের ১৮ জুলাই ঢাকা জেলা ও দায়রা জজ এসএম কুদ্দুস জামান আসামিদের বিরুদ্ধে অভিযোগ গঠন করেন।
এর পর প্রায় ছয় বছর পেরিয়ে গেলেও কোনো সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ হয়নি। থমকে আছে মামলার বিচার কার্যক্রম। রানা প্লাজা ধস হত্যা মামলায় অভিযুক্ত ৪১ আসামির মধ্যে বর্তমানে কারাগারে আছেন কেবল ভবনের মালিক সোহেল রানা। বাকি আসামিদের মধ্যে জামিনে আছেন ৩২ জন, পলাতক ছয়জন এবং মারা গেছেন দুজন।
ধ্বংসস্তূপ অপসারণের পর ১৮ শতাংশ জমির ওপর নির্মিত ভয়াল সেই ঘটনাস্থলের চারপাশটা কাঁটাতার ও টিনের বেড়া দিয়ে রেখেছে জেলা প্রশাসক।
এর সামনেই বিভিন্ন সংগঠন তৈরি করেছে শহীদ বেদি। বিশ্ব কাঁপানো এই শিল্প দুর্ঘটনায় হতাহতদের স্মরণে নানা কর্মসূচি নিয়েছে তৈরি পোশাকশিল্প সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন সংগঠন। শোকাবহ দিনটি ঘিরে রানা প্লাজায় আহত এবং নিহত-নিখোঁজদের স্বজনের আসতে শুরু করেছেন শহীদ বেদির সামনে। ক্ষতিপূরণসহ জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করেছেন তারা।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ খোলা নিউজ বিডি ২৪
Themes Customize By Theme Park BD