1. admin@kholanewsbd24.com : admin :
বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন
বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ১১:০৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
বড়াইগ্রামে বিএনপি জামায়াত সরকারের আমলে সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল নাটোরে লালপুরে পানিতে ডুবে দুই শিশুর মৃত্যু টঙ্গীতে ফেনসিডিলসহ ৩ মাদক কারবারি গ্রেফতার চিরিরবন্দরে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে আওয়ামীলীগের বিক্ষোভ মিছিল নোয়াখালীতে পুকুর থেকে যুবকের ভাসমান লাশ উদ্ধার দেশব্যাপী সিরিজ বোমা হামলার আজ ১৭ বছর। ২০০৫ সালের ১৭ই আগষ্ট সাড়া দেশে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল করেন আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠন গুলো উপজেলা ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে ১৭ আগস্ট সিরিজ বোমা হামলা দিবস উপলক্ষে কালো পতাকা মিছিল ও বিক্ষোভ সমাবেশ ঠাকুরগাঁওয়ে ছাত্রলীগের কালো পতাকা মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ সাংবাদিক নির্যাতনের প্রতিবাদে সাভারে মানববন্ধন আশুলিয়া থানা আওয়ামী লীগের বিক্ষোভ মিছিল

প্লিজ স্যার, আমার আঙ্গুল তিনটা রাইখেন। দেশ স্বাধীন হলে আমি ওপেনিং নামবো, ক্যাপ্টেন হবো।’

প্রশাসন
  • সময় : শনিবার, ২৭ নভেম্বর, ২০২১
  • ১২৪ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টারঃ মোঃ সাহাজুদ্দিন সরকার সুমন

এই উক্তিটি ছিলো শহীদ জুয়েলের । স্বাধীনতা পূর্ব সময়ের সবচেয়ে স্টাইলিস্ট ব্যাটসম্যান এবং উইকেট কিপার । জাতীয় দলে ডাকও পেয়েছিলেন তিনি কিন্তু তার আগে মুক্তিযুদ্ধে নেমে পড়েন তিনি । ঘটনাটা মুক্তিযুদ্ধ শুরু হওয়ার কিছুদিন পর , ক্র্যাকপ্লাটুনের উপর সিদ্ধিরগঞ্জ পাওয়ারস্টেশন উড়িয়ে দেওয়ার দায়িত্ব পড়লো। তারই ধারাবাহিকতায় এক রাতে জায়গাটা রেকি করতে বের হলেন বদি, আজাদ, জুয়েলসহ মোট ১০ জন যোদ্ধা। বাড্ডার পিরুলিয়া গ্রাম থেকে নৌকায় যাত্রা করার পর বেশ কিছুদূর গিয়ে সবাই টের পেলেন, সামনে থেকে আরেকটা নৌকা আসছে। আর সেটা পাকিস্তানি আর্মিতে ভরা। একমাত্র বদি ছাড়া সবার স্টেনগান ছিল নৌকার পাটাতনের নিচে। সেটা বুঝতে পেরেই বদি কোনো কিছু না ভেবেই সমানে ব্রাশফায়ার চালিয়ে দিলেন সামনের নৌকার দিকে। হানাদার অনেকে মরলো, নৌকা উল্টে গেল; কয়েকজন হয়তো বেঁচেছিলো সাঁতরে। ওদের পক্ষ থেকেও গুলি ছোঁড়া হয়েছিলো। যে কারণে সবকিছু ঠান্ডা হয়ে যাওয়ার পর জুয়েল হঠাৎ অন্ধকার থেকে বলে উঠলেন, ‘ঐ আমার হাতে যেন কী হইছে’।

টর্চের আলোয় দেখা গেল, পাক হানাদারদের ছোঁড়া গুলি জুয়েলের আঙুল ভেদ করে চলে গেছে। সেই অবস্থাতেই তাকে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল ডা. আজিজুর রহমানের চেম্বারে। যাওয়ার পথে আজাদ তাকে জিজ্ঞেস করলেন,
‘জুয়েল, তোমার খুব কষ্ট হচ্ছে না?’
দাঁত বের করে জুয়েল বললেন,
‘নাহ, হেভি আরাম লাগতেছে। দেশের জন্য রক্ত দেওয়াও হইলো, আবার জানটাও বাঁচলো।’

অভিজ্ঞ ডাক্তার আজিজুর রহমান জুয়েলের হাতের অবস্থা দেখে সেদিন চমকে উঠেছিলেন। আঙ্গুলের রক্তপাত বন্ধ হচ্ছিলো না কোনোমতেই। ড্রেসিং করতে গিয়ে অবস্থা আরও বেগতিক। জুয়েল দাঁতে দাঁত চেপে শুধু বলছিলেন, ‘প্লিজ স্যার, আমার আঙ্গুল তিনটা রাইখেন। দেশ স্বাধীন হলে আমি ওপেনিং নামবো, ক্যাপ্টেন হবো।’

এরপর আর অপারেশনে নামা হয়নি জুয়েলের। থাকতেন সহযোদ্ধা আজাদের বাড়িতে। সেখানেই একদিন হানাদার বাহিনী হামলা চালায়। ক্যাম্পে উঠিয়ে নিয়ে যায় জুয়েলকে। অকথ্য নির্যাতনের মাধ্যমে সব তথ্য বের তার কাছ থেকে আদায় করতে চেয়েছিলো শত্রুরা। কিন্তু টেস্ট ক্রিকেটের মতোই মাটি কামড়ে সেদিন দেশের জন্য ব্যাট করে গেছেন জুয়েল। পাক হানাদাররা শেষ পর্যন্ত হত্যা করেছিলো জুয়েলকে।

স্বাধীন বাংলায় জুয়েল মুক্তিযুদ্ধে তার অসামান্য অবদানের জন্য বীর বিক্রমে ভূষিত হয়েছিলেন। দেশের ক্রিকেটও তাকে মনে রেখেছে, ‘হোম অব ক্রিকেট’খ্যাত মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় ক্রিকেট স্টেডিয়ামের জুয়েল স্ট্যান্ড তারই নামানুসারে করা। আর আজাদ বয়েজ ক্লাবের সেই মোশতাক ভাইয়ের নামে মোশতাক স্ট্যান্ড। প্রতি বিজয় দিবসে তাদের স্মরণে সাবেক-বর্তমান ক্রিকেটারদের অংশগ্রহণে অনুষ্ঠিত হয় শহীদ জুয়েল-মোশতাক স্মৃতি প্রীতি ম্যাচ।

সেই মিরপুরের স্টেডিয়ামে, শহীদ জুয়েল স্ট্যান্ডে এই দেশের কিছু দর্শক পাকিস্তানের পতাকায় বিজয় উল্লাসে মেতে উঠছে। এটি জাতি হিসেবে বীর শহীদ জুয়েলদের উত্তরসূরি হিসেবে ভীষণ লজ্জার।

পাকিস্তান আমাদের প্রতিবেশি রাষ্ট্র । আমাদের পররাষ্ট্রনীতির ভিত্তিতে তারা প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা পাবেন । তাদের আমরা খেলার জন্য আমন্ত্রণ জানাতে পারি, তাদের খেলা উপভোগ করতে পারি । কিন্তু দেশের প্রশ্নে, জাতীয় পতাকার প্রশ্নে আমাদের আপোষহীন হতে হবে ।

আমাদের বুঝতে হবে তোমরা যে পতাকা উড়িয়ে তাদের সমর্থন দিচ্ছো, সেই পতাকা উড়িয়ে, পাকিস্তান জিন্দাবাদ স্লোগানে ওদের পূর্ব পুরুষ আমাদের মা-বোনদের উপর ঝাপিয়ে পড়েছে, বুলেটে ক্ষতবিক্ষত করেছে লক্ষ লক্ষ মানুষকে, মেতে উঠেছে রক্ত হলি খেলায় । তাদের সাথে তুমি কখনোই আপোষ করার অধিকার রাখো না।

পিতৃহীন জুয়েলকে যুদ্ধে যাওয়ার জন্য ছাড়তে চাননি মা। চাননি চোখের আড়াল করতে। তাই জুয়েল একদিন নিজের একটা ছবি বাঁধিয়ে দেয়ালে ঝুলিয়ে দিলেন। তারপর মাকে বললেন,
‘আমাকে মনে পড়লে এইটা দেখবা, আমারে দেখবা।’

পাকিস্তানের পতাকা হাতে নেওয়ার আগে তোমরা তোমাদের প্রিয়জনদের ছবি কল্পনা করো, জুয়েলের জায়গায় নিজেকে বসাও, দেখবে তোমার বুক কেঁপে উঠছে।

জুয়েল হতে না পারো, জুয়েলদের অসম্মান করার কোন অধিকার তোমাদের নেই হে ! যুবক !!

©️ COLLECTED ©️

Leave a Reply

Your email address will not be published.

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ খোলা নিউজ বিডি ২৪
Themes Customize By Theme Park BD