1. admin@kholanewsbd24.com : admin :
সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন
সোমবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০২১, ০৪:২৪ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
সড়ক দুর্ঘটনায় মেধাবী স্কুল ছাত্রীর উমামা নিহত। নবনিযুক্ত আ’লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটনকে মেয়র সাইদুর-এর ফুলেল শুভেচ্ছা জ্ঞাপন! আবুল বাশার সুজন” গুরুতর অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভর্তি, ডাঃ জালাল উদ্দীনকে দেখতে যান! ইসলামি আন্দোলনের ৫ প্রার্থী বৈধ দুর্নীতি দমন কমিশন অর্থ-পাচারে জড়িত ২৯ ব্যক্তি ও ১৪ প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে হাইকোর্টে তালিকা দাখিল করেছেন! মোরেলগঞ্জ ক্লিনিক মালিকের ঝুলন্ত মরাদেহ উদ্ধার। নড়াইলে মাসিক কল্যাণ সভায় শ্রেষ্ঠ পুলিশ অফিসারদের পুরস্কৃত করলেন এসপি প্রবীর কুমার রায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ইসলামী জলছায় জাকের পার্টি চেয়ারম্যান ফেৎনা সৃষ্টিকারীরা ইসলামের অনুসারী নয় ৷ সাভার উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ঘোষণা করা হয়েছে ৷ সাভারে অস্ত্রসহ সন্ত্রাসী গ্রেফতার

সাংবাদিক এর বিরুদ্ধে মিথ্যা এবং হয়রানি মূলক অভিযোগ।

প্রশাসন
  • সময় : সোমবার, ১৫ নভেম্বর, ২০২১
  • ৫১ বার পঠিত

স্টাফ রিপোর্টার

গাজীপুর জেলার জয়দেব পুর থানার অধিনে বাঘের বাজার কাপাসিয়া নামে এক খাবার হোটেলের দীর্ঘ দিন যাবত মানসম্মত কোন পরিবেশ ছিল না।তাই অপরিচ্ছন্ন খোলামেলা খাবার অপরিষ্কার ভাবে পরিচালনা করার কারণে গোপন সূত্রে কিছু তথ্য এবং অভিযোগ পাওয়া যায়।

তথ্য প্রযুক্তি আইন অনুযায়ী একুশে সংবাদ এর সংবাদকর্মী স্টাফ রিপোর্টারঃ খাদিজা আক্তার রউজা ঘটনাটির সত্যতা যাচাইয়ের জন্য গত ৭- ১১-২০২১ তারিখে কাপাসিয়া খাবার হোটেলে গিয়ে দেখে হোটেল মালিক শফিকুল ইসলাম হোটেলে নেই । কর্মচারীদের সাথে কথা বলে জানতে পারে তিনি বাসায় আছেন।

তখন একুশে সংবাদকর্মী খাদিজা আক্তার রউজা তাহার মুঠোফোনে কল দিয়ে পরিচয় দেয় এবং উনাকে হোটেলে আসতে বিনীতভাবে অনুরোধ করেন। তিনি হোটেলে আসার আগেই ফোন দিয়ে কিছু কিছু সাংবাদিকদের আসতে বলে যাদের নাম বলে আমি তাদের ছোট করতে চাচ্ছি না। তার কিছুক্ষণ পরেই হোটেল মালিক শফিকুল ইসলাম হোটেলে এসে উপস্থিত হন।

অভিযোগের ভিত্তিতে ঘটনার সত্যতা কতটুকু আমি তা জানতে চাই এবং ওনার ট্রেড লাইসেন্স আছে কিনা তা জানতে চাইলে উনি আমাকে কিছু কাগজপত্র দেখান যার কোন বর্তমান ডেট ছিল না। পরে অনেক খোঁজাখুঁজি করেও অর্থবছরের ট্রেড লাইসেন্স পেয়ে আমাকে দেখালে আমি সেখান থেকে আমার শ্রদ্ধেয় বড় মানিক ভাই, জাফর, মিলন সেখ শাহীন সহ সবাই এক সথে হোটেল থেকে বেরিয়ে আসি এবং হোটেল মালিক শফিকুল ইসলামকে বলি আপনার জরুরী কাগজপত্র গুলি তাড়াতাড়ি ঠিক করে ফেলবেন।এবং খাবার দাবার সঠিক এবং সুন্দর ভাবে ঢেকে রাখবেন। এই কথা বলে আমরা তখন চলে আসি।

উনার সাথে আমার কোনো বিরোধ বা দ্বন্দ্ব না থাকা সত্ত্বেও গত নভেম্বরের ১১-১১- ২০২১ ইং তারিখে
একুশের সংবাদকর্মী স্টাফ রিপোর্টারঃ খাদিজা আক্তার রউজার নামে জয়দেবপুর থানায় একটি মিথ্যে এবং হয়রানিমূলক অভিযোগ দায়ের করে।

দায়েরকৃত অভিযোগে গাওয়া হয় হোটেল মালিক শফিকুল ইসলাম একুশের সংবাদকর্মী নাকি তাকে ভয়-ভীতি দেখিয়ে দুই হাজার টাকা চাঁদা দাবি করলে তিতি তা দিতে বাধ্য হন এবং ওনার হোটেলের ক্ষয়ক্ষতি বাবদ আরও ৪৫০০শত টাকা দ্বাবি করে অভিযোগটি দায়ের করে।

এই অভিযোগের আয়ু ছিলেন এসআই রাকিবুল তিনি অত্যন্ত ভালো মনের মানুষ সঠিক তদন্ত ও বিবেচনা করে উভয় পক্ষকে ১৫-১১- ২০২১ তারিখ বাদ মাগরিব
উভয়পক্ষকে ডেকে পুলিশ ফাঁড়িতে বসে এই অভিযোগের প্রত্যাহার করে দেন।

এসময় এখানে উপস্থিত ছিলেন সদর প্রেসক্লাবের
সম্মানিত সভাপতি আমার বড় ভাই আবু বক্কর সিদ্দিক সাহেব এবং যুগান্তরের কাশেম সাহেব, এবং মানিক ভাই সহ আরও অনেকই সকলের সহযোগিতায় এই মিথ্যা অভিযোগটির প্রত্যাহার করেন।

এই অভিযোগের আয়ু রাকিবুল সাহেব সহ আরো অন্যান্য যাদের সহযোগিতায় এই মিথ্যে অভিযোগটি প্রত্যাহার করা হয় তাদের সকলের প্রতি আমি কৃতজ্ঞতা জানাই। এবং এই ন্যাক্কারজনক ঘটনার জন্য তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাই।

একটা কখা না বললেই নয়,ছাগলের মুখেও কিন্তুু দাড়ি থাকে তবুয় সে মসজিদে নামাজ পরেতে পারেন কারণ সে ছাগল। আর হোটেল মালিক সফিকুল ইসলাম মুখে নবীর সন্নতি দাড়ি এবং টুপি মাথায় দিয়ে পাঁচ অক্ত নামাজ পড়ে যে মিথ্যে অপবাদ দিয়ে আমাকে অভিযুক্ত করে আমার দীর্ঘদিনের মূল্যবান ক্যারিয়ার মান ইজ্জত, ও সম্মানর মানহানি করার কারণে দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।

হোটেলমালিক শফিকুল এবং তার সহযোগীদের পরামর্শে সাংবাদিক এর বিরুদ্ধে মিথ্যা এবং হয়রানি মূলক অভিযোগ করে যে নেক্কারজনক কাজ করলেন। একটা কখা না বললেই নয়,ছাগলের মুখেও কিন্তুু দাড়ি থাকে তবুয় সে মসজিদে নামাজ পরেতে পারেনা কারণ সে ছাগল। আর হোটেল মালিক সফিকুল ইসলাম মুখে নবীর সন্নতি দাড় এবং টুপি মাথায় দিয়ে পাঁচ অক্ত নামাজ পড়ে যে মিথ্যে অপবাদ দিয়ে আপনাকে অভিযুক্ত করলেন এটার প্রতি ফল সে পাবে আশা রাখলাম।

তখন বুঝবে আসল নকল সাংবাদিক এর পার্থক্য কতোটা এবং কেমন হয়। সত্য কথা বলার সাহস নাই লোক কাপুরষ হয়। সম্মানহানি করার প্রতি ফল একদিন না একদিন সে এবং ২০০০ হাজার টাকা না আল্লাহ চাহেতো কতো টাকা যে বেড়িয়ে যাবে তখন বুঝবে আসল নকল সাংবাদিক এর পার্থক্য কতোটা এবং কেমন হয়।

চাঁদাবাজির মিথ্যা অপবাদে অভিযোগ দায়ের করে শুধু আমাকে ছোট করা হয়নি।এই লজ্জা কার? আমার একার? না,কিছতেই না।এই লজ্জা গোটা সাংবাদিক জাতির। কিন্তুু এই সাংবাদিকরাই উস্কিয়েছে শফিকুল ইসলামকে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ করতে।
ছি….কি লজ্জা এক কুকুর আরেক ককুরের মাংস খায়না।অথচ এক সাংবাদিক আরেক সাংবাদিকের সম্মান হানি করে বিশণ সুখ পায় এরা সাংবাদিক নামের কলঙ্ক ধিক্কার জানাই এদেরকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা

© স্বত্ব সংরক্ষিত © ২০২১ খোলা নিউজ বিডি ২৪
Themes Customize By Theme Park BD