1. admin@kholanewsbd24.com : admin :
বিজয়ের ৫০ বছরে অর্থনীতির বিভিন্ন সূচকে অভূতপূর্ব উন্নয়ন" খাদ্য, বস্ত্র ও বাসস্থানে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ! - খোলা নিউজ বিডি ২৪    
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৪১ পূর্বাহ্ন
বৃহস্পতিবার, ২৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৪:৪১ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম :
জয়পুরহাট র‌্যাব-৫ কর্তৃক ৭২কেজি গাঁজাসহ মাদক সম্রাট মনির গ্রেপ্তার ময়মনসিংহের অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোঃ মহিবুল ইসলাম খান বিপিএম পদকে ভূষিত হয়েছেন পাঁচবিবিতে এক স্কুল শিক্ষকের বেশ কয়েকটি মেহগনি গাছ কেটে ফেলেছে দুর্বৃত্তরা জামালপুরে রুই মাছের পূর্ণাঙ্গ জিনোম সিকোয়েন্সিং কাশিমপুর থানা আওয়ামী লীগের কোষাধ্যক্ষ মোশাররফ মৃধার ইন্তেকাল ঠাকুরগাঁও জমে উঠেছে জেলা পরিষদ নির্বাচন ঠাকুরগাঁওয়ে “আত্মকথন” শীর্ষক ভিডিওচিত্র সংকলনের উদ্বোধনী বেলকুচিতে দু বছরেও হয়নি মরিয়ম হত্যাকান্ডের রহস্য উদঘাটন,মামলা ডিবিতে স্থানান্তর “ধউর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়”র বার্ষিক ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত পুলিশের সর্বোচ্চ পদক পেলেন লেফটেন্যান্ট কমান্ডার রাকিব মাহমুদ খান

বিজয়ের ৫০ বছরে অর্থনীতির বিভিন্ন সূচকে অভূতপূর্ব উন্নয়ন” খাদ্য, বস্ত্র ও বাসস্থানে প্রায় স্বয়ংসম্পূর্ণ!

প্রশাসন
  • সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ জানুয়ারি, ২০২২
  • ৮৮ বার পঠিত

এস আর টুটুল এম এল-খোলা নউজ বিডি-২৪,
লাল-সবুজের মানচিত্র বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের স্বপ্নের সোনার বাংলাদেশ।

দুই লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রম হারিয় ৩০ লাখ শহিদের রক্ত দিয়ে আঁকা এ লাল-সবুজের মানচিত্র। আজ থেকে ৫০ বছর আগে শূন্য থেকে যাত্রা শুরু, যা এরই মধ্যে বিশ্বদরবারে উন্নয়নের বিস্ময় নামে পরিচিতি পেয়েছে। সর্বোচ্চ বৈশ্বিক মহামারী করোনা, বন্যা, দুর্যোগ এবং নানা ঘাত-প্রতিঘাত পেরিয়ে এখন অর্থনীতি ও আর্থসামাজিকসহ বিভিন্ন উন্নয়ন সূচকে বিশ্বদরবারে উদীয়মান একটি রাষ্ট্রের নাম বাংলাদেশ। নিজেস্ব অর্থায়নে পদ্মা সেতু করে বিশ্ব অর্থনীতিতে নিজেদের অবস্থান জানান দিয়েছে বাংলাদেশ। এছাড়াও মেট্রোরেল, পারমাণবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র, কর্ণফুলী টানেলসহ ১০টি মেগা প্রকল্প বাস্তবায়নের পথে। মহাকাশে জানান দিয়েছে বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট।

কঠোর লড়াইয়ে স্বাধীনতা অর্জনের পর দেশটি শূন্য থেকে আজ বৈশ্বিক উৎপাদনের কেন্দ্রে অবস্থান করছে।
অর্থনীতির আকারে বর্তমানে বিশ্বে ৪০তম বাংলাদেশ।
ইলিশ উৎপাদনে বিশ্বে প্রথম, তৈরি পোশাকে দ্বিতীয়, পাট রপ্তানিতে প্রথম ও উৎপাদনে দ্বিতীয়, কাঁঠালে দ্বিতীয়। চাল, মাছ ও সবজি উৎপাদনে তৃতীয়, আম ও আলুতে সপ্তম। ক্রিকেটে, আউটসোর্সিং ও বাইসাইকেল রপ্তানিতে অষ্টম।

পেয়ারায় অষ্টম এবং মৌসুমি ফলে দশম অবস্থানে বাংলাদেশ। এ অর্জন শহিদদের জানান দেয়, তোমাদের আত্মত্যাগ বৃথা যায়নি। ৫০ বছর আগে যে স্বপ্ন দেখেছিলেন জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, আজ সেই স্বপ্ন পূরণের নাম বাংলাদেশ। আজীবন লড়াই-সংগ্রাম আর ত্যাগের মধ্য দিয়ে প্রথম স্বপ্নটি বঙ্গবন্ধু বাস্তবায়িত করেছিলেন।

বাঙালিকে এনে দিয়েছেন মহান স্বাধীনতা। সেই স্বাধীন দেশে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্ন পূরণ করে চলেছেন তাঁরই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
১৯৭১ সালে ৭ই মার্চ সৃষ্টি হয়েছে পরাধীনতার শৃঙ্খল ভাঙার ইতিহাস। ৩০ লাখ শহিদের তাজা রক্ত আর দুই লাখ মা-বোনের সম্ভ্রমহানির মধ্য দিয়ে অর্জিত হয়েছে ৫৬ হাজার বর্গমাইলের মানচিত্র ও লাল-সবুজের পতাকা।

পৃথিবীতে এত দাম দিয়ে আর কোনো দেশকে হয়তো পতাকা কিনতে হয়নি। তাইতো বাঙালি স্বপ্ন দেখছে সোনার বাংলা গড়ার। এটি শুধু একটি দেশের স্বাধীনতাই নয়, বিশ্বের নির্যাতিত-নিপীড়িত মানুষের পরাধীনতার শিকল ভেঙে বের হওয়ার প্রেরণাও বটে।

শুধু তাই নয়, কীভাবে একটি নিরস্ত্র জাতি মনের জোরে অত্যাধুনিক অস্ত্রে সজ্জিত একটি বাহিনীকে মাত্র ৯ মাসে হার মানাতে বাধ্য করে, তা সারা বিশ্বে নজিরবিহীন দৃষ্টান্ত। এর সঙ্গে জড়িয়ে আছে হাজারও বঞ্চনা থেকে মুক্তির ইতিহাস, বাংলাদেশের মানুষের আবেগ ও উচ্ছ্বাস। স্বাধীনতার মূল উদ্দেশ্য ছিল দুটি-অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক মুক্তি।

২৫ বছর ধরে বাংলাদেশে বসবাস করছেন জার্মান সাংবাদিক ড্যানিয়েল সিডল। তিনি তার বইয়ে বিজয়ের ৫০ বছরে বাংলাদেশের সাফল্যের ৫০টি গল্প তুলে ধরেছেন। তবে অর্থনীতিবিদরা বলছেন, সাফল্যের পাশাপাশি আছে ব্যর্থতাও। চেষ্টা চলছে সেগুলো কাটিয়ে ওঠার।

এখনো উন্নয়নে মূলবাধা দুর্নীতি। এছাড়াও সুশাসন, প্রতিষ্ঠান ও নির্বাচনব্যবস্থার উন্নয়ন। সম্পদ, আয় ও ভোগবৈষম্যের কারণে উন্নয়নের সুফল সবার কাছে পৌঁছে না। তাদের মতে, এই ব্যর্থতা কাটিয়ে সম্ভাবনা কাজে লাগিয়ে যেতে হবে বহুদূর।

জানতে চাইলে সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের অর্থ উপদেষ্টা ড. এবি মির্জ্জা আজিজুল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, ৫০ বছরে দেশের অর্থনীতিতে যথেষ্ট অগ্রগতি হয়েছে। স্বাধীনতার পর তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্টের নিরাপত্তা উপদেষ্টা হেনরি কিসিঞ্জার বাংলাদেশকে তলাবিহীন ঝুড়ি বলেছিলেন।

অর্থাৎ, বাংলাদেশে কিছু থাকবে না। সেখান থেকে উঠে এসেছে বাংলাদেশ। এর মধ্যে মোট দেশজ উৎপাদনের (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি, মাথাপিছু আয়, মাতৃমৃত্যু, শিশুমৃত্যু, প্রাথমিক শিক্ষা এবং নারী শিক্ষাসহ অর্থনৈতিক ও সামাজিক সূচকে বিশাল অর্জন হয়েছে। এছাড়া ইতোমধ্যে এলডিসি থেকে উত্তরণে সুপারিশ মিলেছে। সেখানে মাথাপিছু আয়, মানবসম্পদ এবং অর্থনৈতিক ভঙ্গুরতা সূচকে বেশ ভালো অবস্থান।

স্বাধীনতার পর গত ৫০ বছরে বাংলাদেশের অর্জন নিয়ে বই প্রকাশ করেছেন জার্মানির সাংবাদিক ড্যানিয়েল সিডল। বইয়ে বাংলাদেশের সামাজিক, অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক এবং আর্থসামাজিক উন্নয়নের বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।

বইয়ের নাম দেওয়া হয়েছে বাংলাদেশের ৫০ বছর। বইয়ে বলা হয়েছে : দেশে লোকসংখ্যা ১৬ কোটি ৪৭ লাখ। গণতন্ত্র, সমাজতন্ত্র, জাতীয়তাবাদ এবং ধর্মীয় স্বাধীনতা দেশটির অন্যতম বৈশিষ্ট্য। পতাকা সবুজ ও লাল।

জনসংখ্যার দিক থেকে বিশ্বে বাংলাদেশের অবস্থান ৮ম। মানুষের গড় আয়ু ৭৩ বছর। বাংলাদেশি নারী গড়ে ২.৩টি সন্তান জন্ম দিচ্ছে, দক্ষিণ এশিয়ায় যা সর্বনিম্ন। ৯৫ শতাংশ শিশু স্কুলে যায়। বাংলাদেশের মাতৃভাষা দিবসকে আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস হিসাবে স্বীকৃতি দিয়েছে জাতিসংঘ।

স্বল্পোন্নত থেকে উন্নয়নশীল দেশে রূপ নিয়েছে বাংলাদেশ। ২০৫০ সালে বিশ্বের ২৩তম অর্থনীতির দেশ হওয়ার স্বপ্ন দেখছেন নাগরিকরা। অর্থনীতির মূল চালিকাশক্তি কৃষি, গার্মেন্ট ও প্রবাসী আয়। সাইকেল-রিকশার শহর হিসাবে গিনেস বুকে নাম লেখিয়েছে ঢাকা।

বর্তমানে ১০ লাখের বেশি সাইকেল-রিকশা আছে এ শহরে। ১৬ কোটি মানুষ মোবাইল ফোন ব্যবহার করে। উন্নয়নসংক্রান্ত বৈশ্বিক সূচকে ভারত-পাকিস্তানকে ছাড়িয়েছে বাংলাদেশ। সামগ্রিক সঞ্চয়, মাতৃমৃত্যু নিয়ন্ত্রণ, শিশুমৃত্যু রোধের ঈর্ষণীয় সাফল্য এসেছে।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা মিশনে বিশ্বে দ্বিতীয় অংশগ্রহণকারী দেশ। এশিয়ার অর্থনীতির পাওয়ার হাউজ। গত কয়েক বছর মোট দেশজ উৎপাদনের প্রবৃদ্ধি ৭ শতাংশের বেশি। জনসংখ্যা বিবেচনায় বিশ্বের অন্যতম বৃহৎ শহর ঢাকা।

বর্তমানে এ শহরের জনসংখ্যা ২ কোটি ১০ লাখ। বিশ্বের ১৬০টি দেশে ১ কোটির বেশি প্রবাসী রয়েছে। এরা প্রতিবছর ২০ বিলিয়ন_ ডলারের বেশি রেমিট্যান্স পাঠায়। ২৪ হাজার ১৪০ কিলোমিটার নদনদী রয়েছে। কক্সবাজার বিশ্বের সবচেয়ে বড় সমুদ্রসৈকত।

বিশ্বের সবচেয়ে বড় ম্যানগ্রোভ বন সুন্দরবন। আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের বিবেচনায় বাংলাদেশের মাথাপিছু আয় ২৫৫৪ মার্কিন ডলার!

Please Share This Post in Your Social Media

এ জাতীয় আরও খবর

ফেসবুকে আমরা